About Mohammed Abdulhaque

author and publisher

We need to change

Poor and powerless always suffer. When Mother Nature takes revenge, we all suffer. Everyone wants more money and power, and it’s a very sad story. Nature is changing, therefore let’s be natural and encouraging.
The world will be beautiful only if we realise that after death we will be biological fertiliser. If we live unlawfully, our bodies will rot and they will be poisonous. Therefore, to benefit, everyone should adopt legitimacy.
We are losing the sense of sensibility, safety and equality. We want more for ourselves and none for others. The rich are working very hard to be richer, the mightiest are trying to be mightier, but the power is making us powerless and we are unaware!
If we try to change ourselves consciously, the change will happen automatically. Let’s change the way we think and we’ll have better things to think about. For instance, let’s help each other and we will be happier.

© Mohammed Abdulhaque

সমাজহিতৈষী

কুসংসর্গে থেকে কুসংস্কারে অভ্যস্ত হয়ে আমরা দিনানুদিন অসমাজিক হচ্ছি। মৃত্যু জন্মের মত চিরসত্য জেনেও আমরা বিভ্রান্ত হই, ধর্মকে ব্যবহার করার জন্য ফতোয়াকে হাতিয়ার বানিয়ে ফতো নবাব হই কিন্তু অন্যের নবাবি পছন্দ করি না। পরস্পরের সহযোগিতায় সমাজব্যবস্থার ভিত মজবুত হয়েছিল এবং সমাজবিজ্ঞানে পণ্ডিত ব্যক্তির সাথে ওঠবস করলে সহজে সমাজতত্ত্বে তাত্ত্বিক হওয়া যায়। পরস্পরের হিংসায় পরম্পরায় ধ্বস ধরলে সমাজব্যবস্থা ধ্বংস হবে। সমাজব্যবস্থায় পচন ধরলে পচননিবারক ওষুধে প্রতিকার হবে না। সামাজিক পরম্পরায় সামান্য হেরফের হলে পরবর্তী প্রজন্মের শান্তি-স্বস্তি নষ্ট হয়। সমাজব্যবস্থ সুরক্ষা করা হলো পরম পরম্পরীণ। ঘটনা পরম্পরা অথবা বংশপরম্পরায় এক দাপ বাদ পড়লে তেমন সমস্যা হয় না। সমাজচ্যুতরা সমাজতন্ত্র নিয়ন্ত্রণ করার দরুন শান্তি স্বত্বিতে ছুঁৎ লেগেছে। চোখ টাটিয়ে হেঁটে বজ্জাতরা জাতে ওঠে। নাদাপেটা ভরপেট খাবার চায়, হট্টবিলাসিনীরা চায় রমরমা কারবার, কুন্দুলিরা পছন্দ করে গণ্ডগোল। সেয়ানে সেয়ানে কোলাকুলি করে, সেরকশের হাতে আড়াইসেরি বাটখারা আর গোঁয়ারের হাতে খাঁড়া। অশেষ সমস্যায় সর্বস্বান্তরা দিশেহারা। রেষারেষি এবং হিংসা সমাজতন্ত্র ধ্বংস করে। দুষ্কৃতকারী এবং আইনশৃঙ্খলাভঙ্গকারীরা সমাজজীবনের জন্য বিপজ্জনক। অসুস্থ প্রতিযোগিতা বাদ দিয়ে ভালোবাসা এবং সুখদুঃখ ভাগাভাগি হোক সমস্যার সমাধা। জনগণের কল্যাণসাধন হোক সকলের ব্রত। সাহিত্যে হোক সমাজসংস্কার, মানুষের মঙ্গলকামী এবং সমাজহিতৈষী সাহিত্যিকরা সমাজসংস্কারকারী হলে সাবশেষ সমস্যা আপোশে সমাধান হবে।

© Mohammed Abdulhaque

মৃত্যু

মৃত্যুর হাতে থেকে কেউ নিস্তার পাবে না। অবশেষে মৃতু আত্মহত্যা করবে। বর্তমান বিশ্বে মানুষের সংখ্যা বেড়ে মারাত্মক মাত্রায় পৌঁছেছে। এক মুঠ খাবারের জন্য মানুষ মানুষ খুন করে, গর্ভাশয় ভাড়া দেয়, বীর্য বিক্রি করে। সম্পদশালী হওয়ার জন্য শিশুকে অপহরণ করে দাসত্ব, জোরপূর্বক শ্রম এবং শোষণের উদ্দেশ্যে পাচার করে। জনপ্রিয়তার জন্য কিছু মানুষ যাচ্ছেতাই করে এবং তাদের অপকর্ম অনেকের মৃত্যুর কারণ হয়। অন্যায় এখন এত জনপ্রিয় হয়েছে যে কাকতালীয় ন্যায় পর্যন্ত রহিত হচ্ছে। ভুখ লাগলে আমরা কী খাই তা জানার দিন ফুরিয়েছে। কোথাও কেউ খাবার খেয়ে মরছে অন্য কোথায় কেউ খবারের অভাবে মরছে। জনসংখ্যা নিয়ন্ত্রণের জন্য কেউ কিছু করছে না। ওরা বলে জনসংখ্যা বাড়লে দেশের জনশক্তি বাড়ে। আমার প্রশ্ন হলো, এমন শক্তি দিয়ে কী করবে যে শক্তি নিজেই নিজের মৃত্যুর কারণ?

© Mohammed Abdulhaque