স্বয়ম্বরা

বিশ্বমানের শহুরে প্রেমীক প্রেমিকার গল্প

অপরাহ্নে লোকজন ভিক্টোরিয়া পার্কে হাঁটাহাঁটি এবং দৌড়াদৌড়ি করছিল। পেশিবহুল বলিষ্ঠ যুবক ঝিলের পারে বেঞ্চে বসে ক্লান্ত সূর্যকে জলে হাবুডুবু খেতে দেখে গম্ভীরকণ্ঠে বললো, “মানসী, ভালোবাসি তোমাকে আজীবন ভালোবাসব।”
এমন সময় গাড়ি থেকে বেরিয়ে এক যুবতী দু হাত নেড়ে উচ্চকণ্ঠে বললো, “সরণ! ওখানে কী করছ?”
সরণ মাথা তুলে তাকিয়ে মৃদুহেসে দাঁড়িয়ে হাঁটতে শুরু করে বললো, “সুরভি, কেমন আছ?”
ডবকা শারিকার মত ঠাট ঠমক ঠসকে হেঁটে যেয়ে উচ্ছলকণ্ঠে সুরভি বললো, “আমি ঠিকঠাক আছি, তোমার খবর বলো।”
“মধ্যাহ্ন থেকে সূর্যাস্ত পর্যন্ত এখানে বসার পণ করেছিলাম।”
“পণরক্ষার জন্য কুড়ি গণ্ডা মন্ডা মানত করতে হবে নাকি?” বলে সুরভি অপলকদৃষ্টে তাকালে, হাসার চেষ্টা করে সরণ বললো, “তিন সত্য করে সত্য বললে আসল সত্য হবে, মানসীর সাথে গপসপ করার জন্য আজ আমি দৃঢ়সংকল্প করেছিলাম।”
“তুমি নিশ্চয় জানো, পোড়ো বাড়িতে ভূতরা ঠিকাদারি করে এবং পড়ো-পড়ো বাড়িতে কেউ বেড়াতে যায় না। আজ অন্তত অন্তরের কথা বলো, একলা-একলি এখানে কী করছিলে?”
“সময়কে হত্য করার জন্য চঞ্চল মনকে লীলাচঞ্চল বাতাসে ভাসিয়ে লীলাময়ের লীলখেলা দেখছিলাম। তুমি কেন এসেছ?”
“জড়ি-বুটি গলায় পরে ডাকসুন্দরী হওয়ার জন্য টোটকা চিকিৎসা করাতে চাই। কবিরাজের আজুরা জোগাড় করে আজ আমি বাজারে এসেছি।”
“সাপ ধরার মন্ত্র জপে সত্যি বেজির লেজে পাড়া মেরেছিলে নাকি?” বলে সরণ চোখ কপাল তুললে, মাথা নেড়ে মুখ বেজার করে সুরভি বললো, “তুমি শুনতে চাইলে ইষ্টমন্ত্র জপে সত্যাসত্য বলব।”
“বলতে শুরু করলে মনোযোগ দিয়ে শুনব, আজ আর হুতুমের মতো মুখ বানাব না।”
“হাতের কাজ ফেলে বাসায় পৌঁছে জানতে পেরেছিলাম, ফুসমন্তরে আব্বু আম্মুকে ফুসলিয়ে ওরা কেনাকাটায় গিয়েছে।”
“ওরে সর্বনাশ! কোথায় নিয়ে যাচ্ছে?”
“Bluewater.”
“তুমি চাইলে এখুনি ওদেরকে ধাওয়া করতে পারবে এবং আমি তোমাকে উৎসাহিত করব।” বলে সরণ দুষ্টুহাসি হাসলে মেঘে ভিজা কউতরের মত শিউরে সুরভি বললো, “আকাঙ্ক্ষী মনে অনেক আকাঙ্ক্ষা। ওদেরকে ধাওয়া করে পটোলতোলা যেতে চাই না।”
“তুমি না জানলেও আমি জানি, গরিবের দুঃখে হারীর মন কাঁদে।”
“কার কথা বলছ?”
“দুঃখের সাথে হারী যোগ হলে দুঃখহরীর অর্থ হয়, যে দুঃখ হরণ করে।”
“অবশেষে বিশ্বাস করতে শুরু করেছি, বাদীর মত তুমিও নৈরাশ্যবাদে বিশ্বাসী।”
“দুঃখবাদীদের সাথে আমার কখনো বনিবনা হয়নি তা শুধু আমি জানি। যাক, চাইলে চলো ওদেরকে ধাওয়া করব।”
“ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া চিন্তা বাদ দাও। যানপথে উঠেই বলবে, মানসী, ভালোবাসি তোমাকে আজীবন ভালোবাসব।” বলে সুরভি আড়চোখে তাকা‌য়। ওর চোখের দিকে তাকিয়ে সাধারণকণ্ঠে সরণ বললো, “চাইলেও বাল্যপ্রেম ভুলা যায় না। স্যতাসত্য তুমি জানো এবং আমিও অপারগ।”
“শুনেছি সাধ্যসাধনায় অসাধ্য সাধন হয়।”
“হ্যাঁ, এমন খবর আমিও শুনেছিলাম।”
“তাইলে চেষ্টা করো না কেন?”
“পরে চেষ্টা করব। এখন চলো, ওদেরকে ধাওয়া করলে বিমনা মন চনচনে হবে।”
“মনেমনে মানসীর সাথে রসালাপ করে তুমি বাড়ি চলে যাও। ওদেরকে ধাওয়া করে বিদেহী হতে চাই না।” বলে সুরভি কপট হাসলে, বুক ভরে শ্বাস টেনে সরণ বললো, “বাতাসে প্রেম থাকলে প্রাণীরা প্রাণোচ্ছল হয়। পরিবেশ বিষাক্ত হলে প্রাণীরা শ্বাসকষ্টে ভোগে। বাস্তববাদী হয়ে জেনেছি সম্পদ এবং শক্তির দাপটে মানবতা থরথর করে কাঁপে।”
“কলঙ্ক আজীবন থাকে, কলঙ্কিত হলে কাঁকন কনকন করে এবং কলঙ্কের নুপুর দুপুরে ঝনঝন করে। সভ্যতার অর্থ যারা জানে না তাদের জন্য সব বৈধ, ওরা কোনো ধর্ম মানে না, ওরা অত্যন্ত মারাত্মকর।”
“সংসারাসক্তরা সহজে হতাশগ্রস্ত হয় এবং বিপাকে পড়লে ঘোর সংসারীরা ভোগবাসনাবিমুখ হতে চায়। প্রেম বাতাসের মত। যার যতটুকু প্রয়োজন সে ততটুকু আপসে পায়। বেশি হাঁসফাঁস করলে শ্বাসকষ্ট হয়।”
“আমি তাকে ভালোবাসতে চেয়েছিলাম, কিন্তু সে যা চেয়েছিলে তা আমার আয়ত্তে ছিল না। তখন তুমি জাননি সবকিছু সবার আয়ত্তে থাকে না, এখন সবকিছু পাওয়ার লোভ আর আমার মনে নেই।”
“সানন্দে তুমি তোমার জীবন উপভোগ করো। তোমাকে নিয়ন্ত্রণ করে তোমার সুখ নষ্ট করার অধিকার কাউকে দিয় না। প্রিয়জনরাই আমাদেরকে মানিসক নির্যাতন করে এবং নির্যাতিতরা নীরবে তা সহ্য করে।” বলে সরণ বুক ভরে শ্বাস টানলে, দাঁত কটমট করে সুরভি বললো, “ধরতে পারলে মনকে আজ উচিত শিক্ষা দিতাম।”
“অবুঝ মন কী অপরাধ করেছে?”
“অবুঝের মত উজবুকের প্রেমে মজে আমাকে আঁখিজলে ডুবিয়েছে।”
“যৌবনে যুবতীরা রূপজেল্লায় উজ্জ্বলা হয়, যোবকরা হয় চোখের নেশায় মাতাল।”
এমন সময় যুবক যুবতী তাদের সামনে দিয়ে যাচ্ছিল। যুবতিকে রাজি করার জন্য যুবক পিছু হেঁটে বলছিল, “তুমি এত নির্দয় কেন? বিয়ে করার জন্য আমি তোমাকে ভালোবেসেছি। দোহাই রাগ কর না, বিয়ে করতে হবে তাই না? তাইলে এত দেমাগ কেন? আমি জানি তুমি অলোক সুন্দরী, তাইতো তোমাকে পছন্দ করেছি। বরণ করলে বাসর জাগবো সাজিয়ে পানসি, তুমি জান আমি তোমাকে কত ভালোবাসি।”
তাদের চলে যাওয়া পথের দিকে তাকিয়ে সরণ বললো, “যা কখনো খুব পরিচিত ছিল আজ তা কেমন অপরিচিত হলো, যা খুব আপন ছিলো, আজ তা পর মনে হলো। কেন এমন হলো? দোষ কি শুধু আমার ছিলো? জানি না, হয়তো আমার ভুলে সব এলোমেলো হয়েছিলো। সত্যাসত্য এখন আর জানতে চাই না জেনে মন ক্ষমা চেয়ে তোমার ভুল ক্ষমা করলো।”
“আমাকে কিছু বলছ নাকি?” বলে সুরভি কপাল কুঁচকে তাকালে সরণ বললো, “ষড়রিপুরদের ষড়যন্ত্র এবং অন্তরের কুমন্ত্রণায় বিভ্রান্ত হয়ে মানবতা এবং সভ্যতা এখন বিপর্যস্ত হয়েছে। আমার বিশ্বাস এবং অভিজ্ঞতা আমি সকলের সাথে ভাগ করি। কেউ বকে কেউ সহমত প্রকাশ করে।”
“চাষিরা জানে ভালো গাছের ফল ভালো হয় এবং ভালো বিচি থেকে ভালো গাছ হয়। ভাত খাওয়ার আগে হালচাষ করতে হয়। হাঁটতে থাকলে গন্তব্য কাছে আসে, দাঁড়িয়ে থাকলে সূর্য ডুবে এবং পরের দিন নতুন পথে হাঁটতে হয়।”
“কবিতায় বাস্তবতা না থাকলে কবি বাস্তবিক হতে পারে না। জল্পনা কল্পনা করে একলা হাঁটা যায়, দোকলার সাথে গল্প করতে হলে অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়।”
“তুমি আমার প্রশ্নের উত্তর দাওনি।”
“তোমার প্রশ্নের উত্তর দিতে ভয় হয়। আমি এখন বাড়ি চলে যাব।”
“আমার সাথে গাড়ি আছে, চলো পথে নামিয়ে দেব।”
“আজ না, আরেকদিন।”
“আজ না কেন?”

আরও পড়ার জন্য প্রচ্ছদে ক্লিক করুন

স্বয়ম্বরা

প্রেমোপন্যাস | Romantic love story in Bengali | ভালোবাসার গল্প

© Mohammed Abdulhaque

সাহিত্যসংকলন